যোগাসন - whatsappstatus99

LATEST

Monday, August 19, 2019

যোগাসন


পদ্মাসন , ভদ্রাসন , সিদ্ধাসন , সুখাসন প্রভৃতি যে আসনে স্থিরতা আনে এবং সাধত । সধিকারজপ , উপাসন , ধ্যান ইত্যাদি করতে পারে তাকে বলা হয়েছে আসন । এইসব অসম করার সময় ভূমি সমতল হতে হবে , মেদও সােজা রাখতে হবে , এবং লাের আসন হতে কুশ বকফুল । আর মুক্ত মুতে , নির্জন স্থানে করতে হবে ।
কোন কোন সময় যােগাসন অনুচিত 
১। যাদের হার্টের দুর্বলতা আছে । চোখের দৃষ্টি ক্ষীণ আছে , রক্তের উর্ধচাপ আছে । তাদের যােগাসন যােগাচার্যের পরামর্শে করতে হবে ।
২। মেয়েদের মাসিক হবার পর সাতদিন এবং গর্ভবতী অবস্থায় সাতমাস পর কোন যােগাসনকরা অনুচিত তবে কুম্ভকহীন প্রাণায়াম করা যায় । 
৩। যকৃত বৃদ্ধিতে ধনুরাসন , ভূজঙ্গাসন , শলভাসনকরা অনুচিত ।  
৪। যারা প্রায় বারাে মাস সর্দি কাশি বা নাকের রােগে ভােগেন তাদের কোন আসন না । করাই ভালাে।

যােগাসন সম্পর্কে কিছু প্রয়ােজনীয় কথা 
১। সব সময় আলাে - বাতাস ও বায়ুপূর্ণ স্থানে যােগাসন রুবেন । অসমতল , সাত সেতে , দুর্গন্ধময় স্থানে যােগাসন করবেন না মনি বাইরে থেকে দুর্গন্ধ আসেতবে ভাঙ্গেল ধুপ জ্বালিয়ে দুর্গন্ধ নাশের চেষ্টা করবেন ।
২। যেখানে চেঁচামেচি হলে , মশার উৎপাতহবে তেমন জায়গায় যােগাসন করবেন । রান্না ঘরে কেরােসিনের ল্যাম্প জ্বেলে যােগাসন করবেন না ।
৩। পরিষ্কার জায়গায় একটি কম্বল দু ' ভাজকৱে বিছিয়ে তারপরে পরিস্কার চাদর পেতে যােগালন করবেন । স্প্রিং দেওয়া গদিতে বা নরম বিছানায় যােগাসন করবেন না ।
৪। যােগাসনে বসার সময় পােশাক শক্ত পরবেন না । পাের্ক পাবে ঢিলে - ঢালা । দড়ি দেওয়া জাঙ্গিয়া ও গেন্ত্রি পরে যােগাসন করা ভালাে ।
৫। খালি পেটে বা খাওয়ার ৪ - ৫ ঘণ্টা পরে মােগাসনে বসলেন । যে কোন আসন ১৫ সেকেন্ড থেকে ৩০ সেকেন্ড করে শবাসনে ১০ সেকেও বিশ্রাম নিয়ে আরও ৫ - ৬ বার | করবেন ।
৬। সকালে ঘুম থেকে উঠে মল - মূত্র ত্যাগ করে এক গ্লাস জল খেয়ে যােগাসন করতে পারেন ।
৭। কোন সময় দীর্ঘক্ষণ অনাহারে থাকবেন না । সামান্য কিছু খেলেও খাবেন । তা না হলে গ্যাসটিক আলসার রােগ হবার সম্ভাবনা থাকে ।
৮। যোগাসনে লিপ্ত হবার সময় সামনে এখানা আয়না রাখবেন । তাতেবুতে পারবেন । আপনার আসনের পদ্ধতি ঠিক হচ্ছে কিনা ।
৯। আপনি প্রতিদিন কিরূপ আসন করবেন তার একটা তালিকা তৈরীরবেন । (ক) এমন ২/৪টি আসনকরুন যাতে মেরুদণ্ড সামনে । (খ) ২ - ৪টি বামে - ডাইনে মােচড় দেওয়া । (গ) ২ - ৪টি পেটের উপর চাপ পড়ে এমন আননে অভ্যস্থ হবেন ।
১০। যােগাসনে বসার একটা নির্দিষ্ট সময় করে নেবেন । প্রতিদিন ঐ সময়ে আসন করবেন । দুবেলা করলে ভালাে হয় । মাঝে মধ্যে যদি দু - একদিন বাদ ব্যয় তাতে ক্ষতি হবে ।
১১। যারা মােগাসন করেন তাদের প্রতিদিন অন্ততঃ ২ / লিটার অথাৎ৫ প্লাস জল । পান করা উচিত । আহালের ১ ঘন্টা আগে বা ১ ঘন্টা পরে জল খাবেন । খাওয়ার সময় খাবেন না !
১২। স্নানের সময় ঠান্ডা জলে মাথাটি ভালাে করে ধুয়ে নেবেন । আর সােজা হট দাড়িয়ে দুটি বা মগে করে নাভির গােড়ায় জল দেবেন ।
১৩। শীতকালে অনেকেই গরম জলে স্নান করে থাকেন  তবে তাদের দেখতে হবে ঐ জলের তাপ যেন দেহের তাপমাত্রায় চেয়ে বেশী না হয় । তা হলে ক্ষতি হবে ।
১৪। যাদের হজম ক্ষমতা কম তারা ছাগলের দুধ খাবেন তবে দুধ কখনও ঠাণ্ডা খাবেন না । যাদের লিভারের গােলযােগ আছে তারা দুধ , ঘি না খেয়ে দৈ , ঘােল , ছানা খাবেন । সর্দি ধাতের মানুষ দুধ ও দুধের খাবার বর্জন করবেন ।
১৫। মাছ - মাংস - ডিম বেশী না খেয়ে কাচা সঞ্জী , বাদাম ও কাচা ফল খাবেন ।
১৬। যারা দুধ খেতে পারেন না তারা চীনাবাদাম , পাকা কলা , পেয়ারা নারকেল , ডাল , শাক - সবজী খাবেন !  ১৭। দিনের বেলায় ঘুমােননার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে এবং কম করে রাতে ৬ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমতে হবে । দশটা থেকে এগারােটার মধ্যে শয্যা গ্রহণ ভালাে ।
১৮। বীর্য ধারণে Sperm Count বারে
কোন রােগে কি কি আসন নিষিদ্ধ
১। আমাশয় — জানুশিরাসন , পদ্মহস্তাসন , শশঙ্গাসন।
২। পুরাতন সর্দি — সর্বাঙ্গসন , শীর্ষাসন
৩। মেরুদণ্ডের রােগ — সামনে ঝুকে যে সমস্ত আসন ।
৪। মেরুদণ্ডের বেদনায় — মহামুদ্রা, ধনুরাসন , পশ্চিমােত্তাসন ।
৫। প্লীহা ও যকৃত বৃদ্ধিতে পশ্চিমােত্তাসন , ধনুরাসন , ভুজঙ্গাসন , শশভাসন ।
৬। মারাত্মক চক্ষুরােগে — উড্ডীয়ান ময়ুরাসন , জানুশিরাসন , ধনুরাসন , পশ্চিমােত্তাসন , ময়ূরাসন , যােগমুদ্রা , শীর্ষাসন ।
৭। হার্নিয়া — পশ্চিমােত্তাসন , শয়ন পশ্চিমােত্তাসন
৮। হৃদরােগে — বিপরীত করণী মুদ্রা, শীর্ষাসন , সর্বাণাসন।
৯। স্পন্ডেলাইটিস — অর্ধকুমাসন , উদ্ভাসন , সপ্রণতি কুর্মাসন , শশাসন , হলাসন ।
১০। মেয়েদের আসনের নির্দিষ্ট  সময় — ঋতুকালীন সময়ের ৭ দিন এবং তিন মাস অন্তঃসত্ত্বার নিদিষ্টসময় পর সন্তানের বয়স ৩ মাস পার না হওয়া পর্যন্ত ।
১২ বছরের কম বয়সীদের কোন আসনকরতে নেইশীর্ষাসন , সর্বাগাসন , বিপরীতকরণ , জানুশিরাসন , উড্ডীয়ান ।

No comments:

Post a Comment